তীব্র গরমে বৃষ্টির জন্য ঠাকুরগাঁওয়ে নামাজ আদায়

News Editor
প্রকাশ: ১২ মাস আগে

মোঃ সাইফুল ইসলাম ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি,

টানা কয়েক দিনের প্রচণ্ড দাবদাহের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বেড়ে যাওয়া লোডশেডিংয়ের সমস্যা নিয়ে বিপর্যস্ত ঠাকুরগাঁওয়ের জনজীবন। বেশ কিছুদিন বৃষ্টি না হওয়ায় জমির ফসল নষ্ট হচ্ছে। নেমে গেছে পানির স্তর। দেখা দিয়েছে পানির তীব্র সংকট। রোদ আর গরমে অতিষ্ট হয়ে পড়েছেন সাধারণ মানুষ। তাই বৃষ্টির আশায় ঠাকুরগাঁও শহরের গোয়ালপাড়া কাওমি মাদ্রাসা মাঠে বিশেষ নামাজ বা সালাতুল ইসতিসখার) আদায় করেছেন এলাকাবাসী। সোমবার (৫ জুন) মাদ্রাসার মাঠে খোলা আকাশের নিচে এ নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। বিশেষ এ নামাজে ঠাকুরগাঁও শহরের ৪ শতাধিক মুসল্লি অংশ নেন। সদর উপজেলার সরকার পাড়া থেকে বৃষ্টির জন্য নামাজ পড়তে আসা রিকশাচালক জয়নাল হক বলেন, ‘রোদে বাইরে ভাড়া খাটতে যাইতে পারছি না। রাস্তায় পা পড়লে মনে হয় পুড়ে যাচ্ছে। কোনো বাতাস নাই। শুনলাম বৃষ্টির জন্য এই মাদ্রাসায় দোয়া ও নামাজ হবে, তাই চলে আসলাম। আল্লাহ যেন এই ভয়াবহ আবহাওয়া থেকে আমাদের রক্ষা করে।’
মাদ্রাসার পাশের বাসার মহসিন আলী বলেন, ‘গতকাল রাতে আমারা কয়েকজন মিলে সিদ্ধান্ত নিই বৃষ্টির জন্য সালাতুল ইসতিসখার নামাজ আদায় করব। আজ সেই নামাজের আয়োজন করা হয়। নামাজে আশাপাশের পাড়া থেকে অনেক মানুষ অংশ নেন। নিশ্চয় আল্লাহ আমাদের সবার ডাকে সাড়া দেবেন।’
সালাতুল ইসতিসখার নামাজের দোয়ায় ২ হাত উল্টা পাশে করতে হয়।
ইসলামবাগ থেকে বাবার সঙ্গে নামাজ পড়তে যায় ১১ বছর বয়সী নাজমুল হক। সে বলেন, ‘জীবনে প্রথম বৃষ্টির জন্য নামাজ পড়তে আসছি। অনেক মানুষ আসছে। তবে হাত উল্টা পাশে দোয়া করতে হয় এটা প্রথম দেখলাম।’ নামাজ শেষে অনাবৃষ্টি থেকে মুক্তির জন্য মুফতি হারুনর রশীদ বিশেষ মোনাজাত পরিচালনা করেন। এ বিষয়ে তিনি বলেন, এত রোদ কোনো বৃষ্টির দেখা নেই। পুকুর, নদী, বিল সব শুকায়ে গেছে। দীর্ঘদিন বৃষ্টি না হওয়ায় মানুষ পানির জন্য খুব বিপদে আছে। বৃষ্টির জন্য আল্লাহ সালাতের মাধ্যমে চাইতে বলেছেন। আল্লাহর কাছে চাওয়া সুন্নাত। আর চাওয়াকে আরবিতে সালাতুল ইসতিসখার বলা হয়, অর্থাৎ পানির জন্য দোয়া করা। আজকে দোয়া করলাম, নিশ্চয় আল্লাহ কবুল করবেন। এই দোয়ায় ২ হাত উল্টা পাশে করতে হয়