মানিকগঞ্জে চিরনিদ্রায় শায়িত পাইলট আসিম জাওয়াদ

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: ২ সপ্তাহ আগে

রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় বিমানবাহিনীর স্কোয়াড্রন লিডার আসিম জাওয়াদ রিফাতের দাফন সম্পন্ন হ য়রাষ্ট্রীয় মর্যাদায়। গত বৃহস্পতিবারচট্টগ্রামে বিমান বিধ্বস্তে নিহত বিমানবাহিনীর স্কোয়াড্রন লিডার আসিম জাওয়াদ রিফাতের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। আজ শুক্রবার বেলা ৩টার দিকে আসিমের নামাজের জানাজা শেষে মানিকগঞ্জ সেওতা কবরস্থানে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় তাঁর নানার কবরে দাফন সম্পন্ন হয়।

এর আগে বেলা ১১টা ৫০ মিনিটে বিমানবাহিনীর একটি বিশেষ হেলিকপ্টারযোগে মানিকগঞ্জ শহীদ মিরাজ তপন স্টেডিয়ামে আসিমের মরদেহ আনা হয়। এ সময় পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয় বাদ জুম্মা শহীদ মিরাজ তপন স্টেডিয়ামে আসিমের নামাজের জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। বেলা ১টার দিকে জুম্মার নামাজের পর স্থানীয় জেলা প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা,বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দসহ কয়েক হাজার মানুষের উপস্থিতিতে তাঁর জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।
আসিমের জানাজা অনুষ্ঠিত হওয়ার কিছু সময় আগে তাঁর বাবা আমানউল্লাহ একমাত্র সন্তান হারানোর শোক যেন কাটিয়ে উঠতে পারেন এবং অল্প সময়ে চলে যাওয়া সন্তানের জন্য উপস্থিত সবার কাছে দোয়া চান।
মানিকগঞ্জ শহীদ মিরাজ তপন স্টেডিয়ামে বিমানবাহিনীর স্কোয়াড্রন লিডার আসিম জাওয়াদ রিফাতের জানাজার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়।
নিহতের বড় খালু শামসুল ইসলাম বলেন,বিমানবাহিনীর হেডকোয়ার্টারে আসিম জাওয়াদের জানাজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিমানবাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা মোতাবেক আসিমকে ঢাকায় তাঁদের নিজস্ব কবরস্থানে দাফন করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। কিন্তু আসিমের মায়ের দাবি অনুযায়ী তাকে মানিকগঞ্জ সেওতা কবরস্থানে তাঁর নানার কবরে দাফন করা হয়।রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় বিমানবাহিনীর স্কোয়াড্রন লিডার আসিম জাওয়াদ রিফাতের দাফন সম্পন্ন হয় এসময়,
জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সুলতানুল আজম খান আপেল বলেন,আমরা মনে করি আসিম মারা যাওয়ার ঘটনায় একটি নিখুঁত এবং সুষ্ঠু তদন্ত হওয়া উচিত। কীভাবে, কী কী কারণে এমন একটা দুর্ঘটনা হলো, এটা আমরা জানতে চাই। জাতির সামনে যেন তদন্ত রিপোর্ট উপস্থাপন করা হয়। পাশাপাশি নিহতের মা,স্ত্রী সন্তানেরা যেন সারা জীবন চলতে পারে তার একটা সঠিক ব্যবস্থা যেন সরকারের পক্ষ থেকে করা হয়।