স্কুলগুলোর বাণিজ্যিক মানসিকতা দূর করবে নতুন শিক্ষাক্রম

News Editor
প্রকাশ: ১ বছর আগে

হাকিকুল ইসলাম খোকন,যুক্তরাষ্ট্র সিনিয়র প্রতিনিধিঃজগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মার্কেটিং বিভাগের অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান বলেছেন, বিভিন্ন স্কুলে মডেল টেস্ট নেয়ার প্রচলন রয়েছে। এ ধরনের প্রচলন থাকার কারণে আবার ওই স্কুলগুলো বিভিন্ন ধরনের কোচিংও চালায় এবং এগুলো এখন বাণিজ্যিক রূপ নিয়েছে। স্কুলগুলোতে এ ধরনের বাণিজ্যিক মানসিকতা দূর করবে ২০২৩ সালে শুরু হওয়া নতুন শিক্ষাক্রম।খবর বাপসনিউজ।

চলতি বছর চালু হওয়া ৬ষ্ঠ ও ৭ম শ্রেণিতে কোনো ধরনের মডেল টেস্ট বা পরীক্ষা নেওয়া যাবে না। যদি কেউ এর ব্যতয় ঘটায় তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। গতকাল সোমবার মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরে পরিচালক (মাধ্যমিক) প্রফেসর বেলাল হোসাইন সাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। এ নিয়ে বাংলা ইনসাইডার এর সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান এসব কথা বলেছেন।

অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান বলেন, নতুন শিক্ষাক্রমে পরীক্ষা নির্ভরতা কমিয়ে শ্রেণিভিত্তিক মূল্যায়নের ওপর জোর দিতে চলতি বছর থেকে মাধ্যমিক পর্যায়ের ৬ষ্ঠ ও ৭ম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের নতুন শিক্ষাক্রম চালু করা হয়েছে। এরই মধ্যে শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে এ দুটি শ্রেণিতে পাঠদান করাতে শিক্ষকদের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ আসছে। অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে অন্যান্য শ্রেণির মতো এখানেও মডেল টেস্ট বা পরীক্ষা নেওয়া প্রস্তুতি চলছে। এসব অভিযোগ সামনে আসার পর সারাদেশে মাঠ পর্যায়ে শিক্ষক-কর্মকর্তাদের কঠোর বার্তা দিয়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি)।

তিনি বলেন, সাধারণত নিয়ম হলো স্কুলগুলো অর্ধ বার্ষিক এবং বার্ষিক পরীক্ষা নেয়ার ব্যবস্থা। অথবা তিন মাস পর একটা এরপর ছয় মাস পর আরেকটা টার্মিনাল পরীক্ষা এবং বছর শেষে বার্ষিক পরীক্ষা। এটাই প্রচলিত নিয়ম ছিল। কিন্তু কিছু কিছু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বিভিন্ন ধরনের নাম দিয়ে মডেল টেস্ট নেয়া শুরু করেছে। এটি বন্ধ করতে গতকাল মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর নির্দেশনা দিয়েছে যে, শ্রেণির শিক্ষার্থীদের মূল্যায়নের ক্ষেত্রে প্রচলিত কোনো পরীক্ষা/মডেল টেস্ট নেওয়া যাবে না। এই নির্দেশনা আরও আগেই দেয়া দরকার ছিল।

তিনি আরও বলেন, সরকার নিশ্চিয় এটা ফলোআপ করবে। মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর থেকে নিশ্চিয় নির্দেশনা দেয়া হবে বছরে কয়টা, কিভাবে পরীক্ষা হবে। শিক্ষকগণ শ্রেণি কক্ষে না পড়িয়ে যদি সারা বছর ধরে বিভিন্ন ধরনের মডেল টেস্ট আর পরীক্ষাই নেয় সেটা প্রকৃত শিক্ষা নয়। এতে করে বরং ছাত্রদের ওপর বাড়তি চাপ পড়ে।